• সাভার

  •  বুধবার, জুলাই ২৪, ২০২৪

নগর জুড়ে

প্রস্তুত সাভারের চামড়া শিল্প নগরী, লক্ষ্যমাত্রা ১ কোটি ১০ লাখ পিস

নিজস্ব প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ০৯:৪৯, ১৬ জুন ২০২৪

প্রস্তুত সাভারের চামড়া শিল্প নগরী, লক্ষ্যমাত্রা ১ কোটি ১০ লাখ পিস

প্রস্তুত সাভারের চামড়া শিল্প নগরী, লক্ষ্যমাত্রা ১ কোটি ১০ লাখ পিস

ঈদ-উল-আযহাকে কেন্দ্র করে ঢাকার সাভারের চামড়া শিল্পনগরীতে চলছে শেষ সময়ের প্রস্তুতি। কারখানাগুলোতে চলছে ধোয়া মুছার কাজ। প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বিসিক ও কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার (সিইটিপি) কর্তৃপক্ষ। বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন জানিয়েছে, এ বছর ১ কোটি ১০ লাখ পিস চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে।

শনিবার (১৫ জুন) সাভারের তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়নের হরিণধরা এলাকায় বিসিক চামড়া শিল্প নগরীতে ঘুরে দেখা যায়, কারখানাগুলোতে জোর প্রস্তুতি চলছে। কোনো কারখানায় আনা হচ্ছে লবণ। কোথাও আনা হচ্ছে কেমিক্যাল। আবার কোথাও মেশিনারিজগুলো পরীক্ষা করে নেওয়া হচ্ছে। কারখানা ও সড়কের পাশে বর্জ্য যেমন সরিয়ে ফেলা হচ্ছে। তেমনই পানি নিষ্কাশনের নালাও পরিষ্কার করা হচ্ছে। অন্যদিকে কর্তৃপক্ষ সিইটিপির মেশিনারিজ রক্ষণাবেক্ষণের কাজ করেছে বলে জানায়। বিসিক কর্তৃপক্ষ এরইমধ্যে চামড়া সংগ্রহের জন্য ৫০ জনের স্বেচ্ছাসেবক দল ঠিক করেছে।

বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিটিএ) সাধারণ সম্পাদক শাখাওয়াত উল্ল্যাহ বলেন, গরু, ছাগল, মহিষ, ভেড়া মিলিয়ে আমরা এ বছর ১ কোটি থেকে ১ কোটি ১০ লাখ পিস চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্য নিয়েছি। এ বছর লবণের দামও অনেকটা আয়ত্ত্বে রয়েছে। এ বছর আশংকার বিষয় হচ্ছে, গরম। যেহেতু কোরবানির মৌসুম গরমে পড়েছে আর এবছর গরমও বেশি তাই যারা সারাদেশে চামড়া সংগ্রহ করবেন তারা যথাযথ নিয়ম মেনে চামড়া সংরক্ষণ করবেন, তাহলে চামড়ার ন্যায্য মূল্য পাবেন। এছাড়া সিইটিপির অবস্থা পূর্বের যেকোন সময়ের চাইতে ভালো।

চামড়া শিল্পনগরীর প্রস্তুতির বিষয়ে সাভারের বিসিক চামড়া শিল্প নগরীর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মাহফুজুর রহমান রিজোয়ান বলেন, এবারের কোরবানির ঈদে আমরা শিল্প নগরীতে মোট ৬ লাখ চামড়া সংগ্রহ করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া আমাদের চামড়া শিল্পনগরের পার্শ্ববর্তী যে আড়ৎ রয়েছে, সেখানেও ৬ লাখ পিস সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। চামড়া শিল্প নগরীতে চামড়া প্রবেশ যাতে সুষ্ঠুভাবে হয়, সেজন্য আমরা ৫০ জনের অধিক স্বেচ্ছাসেবকের একটি দল গঠন করেছি। ঈদের দিন বিকাল তিনটা থেকে কাজ করা শুরু করবে। আশা করছি এ সময় আমাদের চামড়া সংগ্রহ করা আমাদের চামড়া সংগ্রহ করা ও চামড়া প্রসেস করা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হবে।

ঢাকা ট্যানারি ইন্ডাস্ট্রিয়াল এস্টেট ওয়েটেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্ট কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. গোলাম শাহনেওয়াজ বলেন, আমরা কোরবানির জন্য ব্যাপকভাবে প্রস্তুতি নিয়েছি। পাশাপাশি বছরই আমাদের প্রস্তুতি থাকে। আমাদের কমন ক্রোম রিকভারি ইউনিট (সিসিআরইউ) গত এক বছর বন্ধ ছিল। তবে গত ফেব্রুয়ারিতে এটির ক্রোম সেপারেশন সেকশনের ৫০% আমরা চালু করেছি। আগামী এক মাসের মধ্যে বাকি ৫০% চালু হয়ে যাবে।তিনি বলেন, প্রতিবছর আমাদের যে ওভারহোলিং করা হয়, কোরবানির সময় এটি এ বছর আরও ব্যাপকভাবে করা হচ্ছে। আমাদের ইপিএস ১, ২ ও ৩ থেকে শুরু করে ইকুলেশন, ইফ্লুয়েন্ট পাম্পিং স্টেশন, থিকিনিং ট্যাংক সবই আমরা প্রস্তুত রেখেছি যাতে আমাদের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

ঢাকা জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আনিসুর রহমান বলেন, এ বছর চামড়া সংরক্ষণে ঢাকা জেলা প্রশাসন ব্যতিক্রম উদ্দ্যোগ নিয়েছে। এটির মূল কার্যক্রম মানুষকে সচেতন করা। ঢাকার দুই সিটির ২০ গরুর হাঁটে বিসিকের সঙ্গে সমন্বয় করে জেলা প্রশাসন স্টল দিয়ে জেলা প্রশাসন লিফলেট বিতরণ করছে। রোভার স্কাউট, আমাদের কর্মচারীসহ সবাই চামড়া কিভাবে ছাড়াতে হবে, কিভাবে লবন দিতে হবে সে বিষয়ে প্রচার করছেন। তিনি বলেন, চামড়া পরিবহনের জন্যও ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ঘণ্টায় ঘণ্টায় চামড়ায় মান কমতে থাকে। ফলে চামড়া পরিবহনকারী যানগুলোকে সড়কে যাতে যানজটের কবলে না পড়তে না হয়, ও চামড়া যাতে দ্রুত সংরক্ষণাগারে পৌঁছানো যায়, সেজন্য পোস্তায় বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আর সাভার চামড়া শিল্পনগরীতেও ওসি ও ইউএনওর সমন্বয়ে সেখানে যাতে কোনো যানজট না হয় সেজন্য ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

মন্তব্য করুন: