• সাভার

  •  শনিবার, মে ১৮, ২০২৪

নগর জুড়ে

গৃহকর্মী মৃত্যুর মামলায় আশফাকুল হককে জামিন দেননি হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ১৮:৫৪, ২২ এপ্রিল ২০২৪

গৃহকর্মী মৃত্যুর মামলায় আশফাকুল হককে জামিন দেননি হাইকোর্ট

গৃহকর্মী মৃত্যুর মামলায় আশফাকুল হককে জামিন দেননি হাইকোর্ট

গৃহকর্মী মৃত্যুর মামলায় ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টারের সাবেক নির্বাহী সম্পাদক সৈয়দ আশফাকুল হককে জামিন দেননি হাইকোর্ট। তাঁর জামিন প্রশ্নে রুল জারি করা হয়েছে। কেন তাঁকে জামিন দেওয়া হবে না, জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে। তবে আশফাকুল হকের স্ত্রী তানিয়া খন্দকারের নিয়মিত জামিন প্রশ্নে রুল জারি করে তাঁকে অন্তর্বর্তী জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। আজ সোমবার (২২ এপ্রিল) বিচারপতি মো. রেজাউল হাসান ও বিচারপতি ফাহমিদা কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন। আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন। পরে আইনজীবী খুরশীদ আলম খান সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটা (গৃহকর্মীর মৃত্যুতে অবহেলা) জামিনযোগ্য অপরাধ।

ফলে তাঁরা জামিন পেতে পারেন। এই যুক্তিতে শুনানির পর আদালত তানিয়া খন্দকারকে জামিন দিয়েছেন। আর আশফাকুল হকের জামিন প্রশ্নে রুল জারি করেছেন।’ এ জামিন আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল বিভাগে যাবে কি না, জানতে চাইলে অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এখনো জানি না। নির্দেশনা পেলে আবেদন করা হবে।’ গত ৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকার মোহাম্মদপুরের আশফাকুল হকের আট তলার বাসা থেকে পড়ে মারা যায় প্রীতি উরাং নামের এক কিশোরী গৃহকর্মী। বাসার নিচে পড়েছিল প্রীতির লাশ। জানাজানির পর এ ঘটনায় স্থানীয়রা বিক্ষোভ করে। তাদের অভিযোগ প্রীতিকে হত্যা করা হয়েছে।

প্রীতির বাবা লোকেশ উরাং পরদিন মোহাম্মদপুর থানায় মামলা করেন। মামলায় অবহেলা জনিত মৃত্যুর অভিযোগে দণ্ডবিধির ৩০৪ (ক) ধরায় অভিযোগ আনা হয়। এ মামলায় গত ৭ ফেব্রুয়ারি তাঁদের গ্রেপ্তারের পর আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর থেকে তাঁরা কারাগারে আছেন। বিচারিক আদালতে কয়েক দফায় জামিন আবেদন করে বিফল হন আশফাকুল-তানিয়া দম্পতি। সর্বশেষ গত ২১ মার্চ ঢাকা মহানগর দায়রা জজ মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেনের আদালত তাঁদের জামিন আবেদন নাকচ করে। পরে হাইকোর্টে জামিন চেয়ে আবেদন করেন আশফাকুল-তানিয়া।

এ মামলায় আগামী ১৬ মে প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ রয়েছে। গত ১৭ এপ্রিল ঢাকা মহানগর হাকিম মোহাম্মদ নুরুল হুদা চৌধুরী প্রতিবেদন দাখিলের এ তারিখ দেন। গত বছর ৬ আগস্ট আশফাকুল-তানিয়ার বাসা থেকে পড়ে যায় ৭ বছর বয়সী শিশু গৃহশ্রমিক ফেরদৌসী। প্রাণে বাঁচলেও তার শারীরিক অবস্থা এখনো ভালো নয়। ওই ঘটনায় মামলা হলেও পরে ২ লাখ টাকায় আপসরফা হলে মামলা থেকে অব্যাহতি পান তারা। তবে প্রীতি উরাং-এর মৃত্যুর পর বিভিন্ন মহল থেকে আশফাককে ডেইলি স্টার থেকে অব্যাহতির দাবি ওঠে। গত ২ এপ্রিল ডেইলি স্টারের ইংরেজি ও বাংলা অনলাইন সংস্করণে আশফাকের ‘অব্যাহতির নোটিশ’ প্রকাশ করা হয়।

মন্তব্য করুন: